1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. dbcjournal24@gmail.com : ডিবিসি জার্নাল ২৪ : ডিবিসি জার্নাল ২৪
  3. banglarmukh71@gmail.com : admin1 :
  4. : :
শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৫:২০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দেবিদ্বারে ড্রেজার ব্যবসায়ীর হামলায় সাংবাদিক আহত  বুড়িচংয়ে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মোহাম্মদ জসীম উদ্দিন ভোটের মাঠে এগিয়ে শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মোঃ আমির হোসেন আর নেই কুমিল্লায় নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দৈনিক মুক্ত খবরের ২১তম বর্ষ উদযাপিত দাউদকান্দিতে বিকেএ কুমিল্লা (প.) জেলার কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা বুড়িচংয়ে নারীকে ডেকে নিয়ে গলা কেটে হত্যা আটক ৩ এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদ নেতা বুড়িচংয়ে যাকাত ও ছদাকাত ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে অসহায়ের মাঝে প্রকল্প বিতরণ বুড়িচংয়ে কৃষি শ্রমিক ইউনিয়নের র‍্যালী অনুষ্ঠিত সাত গ্রামের সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী এড. রেজাউল করিম

দেশজুড়ে আইসিইউ ও অক্সিজেনের তীব্র সংকট

  • আপডেট করা হয়েছে সোমবার, ৮ জুন, ২০২০
  • ৩০৮ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক: রোগীর স্বজনদের হাহাকার। দেশের অধিকাংশ জেলা হাসপাতালে নেই আইসিইউ। চাহিদার তুলনায় অনেক কম আইসিইউ শয্যা। আইসিইউ ও অক্সিজেন সংকট তীব্র। দেশে করোনার সংক্রমণ তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। আক্রান্তের পাশাপাশি বাড়ছে মুমূর্ষু রোগীর সংখ্যা। এদের চিকিৎসায় আইসিইউ বা ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটের শয্যার জন্য হাহাকার করছেন স্বজনরা। নানাভাবে চেষ্টা চালাচ্ছেন আইসিইউতে রেখে রোগী চিকিৎসা দিতে। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তারা ব্যর্থ হচ্ছেন।

রাজধানীর কোভিড নির্ধারিত হাসপাতালগুলোর আইসিইউ শয্যার তুলনায় রোগীর চাপ অনেক বেশি। এছাড়া ঢাকার বাইরে সব জেলা হাসপাতালে নেই আইসিইউ শয্যা। আবার অনেক রোগীর অক্সিজেন দিতে হচ্ছে। ফলে এই সময়ে আইসিইউ এবং অক্সিজেনের চরম ঘাটতি দেখা দিয়েছে। রোগীর চাহিদার বিপরীতে আইসিইউ শয্যা ও অক্সিজেন সরবরাহ স্বাভাবিক রাখাই চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সব জেলার হাসপাতালে আইসিইউ স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছেন। জেলা হাসপাতালগুলোয় ৫ শয্যার আইসিইউ স্থাপন করা হবে। মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোয় অতিরিক্ত দশ শয্যা করে আইসিআই স্থাপিত হবে। সব মিলিয়ে আরও ৩৭০টি আইসিইউ শয্যা যোগ হতে যাচ্ছে। এ লক্ষ্যে কাজও শুরু হয়েছে। আগামী এক বছরের মধ্যে কাজ শেষ হবে বলে জানা গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, রাজধানীর সরকারি হাসপাতালগুলোয় আইসিইউ শয্যা রয়েছে ১৩৭টি। এছাড়া ঢাকা বিভাগের ১৩ জেলা হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা রয়েছে ৪৭টি, চট্টগ্রাম বিভাগের ১১টি জেলা হাসপাতালে ৩৪টি, ময়মনসিংহ বিভগের ৪টি জেলা হাসপাতালে ৭টি, বরিশাল বিভাগের ৬টি জেলা হাসপাতলে ১৮টি, সিলেট বিভাগের ৪টি জেলা হাসপাতালে ১৬টি, রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলা হাসপাতলে ২৮টি, খুলনা বিভাগের ১০টি জেলা হাসপাতালে ১৮টি এবং রংপুর বিভাগের ৮টি জেলা হাসপাতালে আছে ১৩টি আইসিইউ শয্যা। সব মিলিয়ে সারা দেশে সরকারি পর্যায়ে আইসিইউ শয্যা রয়েছে মাত্র ৩১৮টি।

এছাড়া ঢাকায় বেসরকারি পর্যায়ে কোভিড নির্ধারিত হাসপাতালগুলোয় আইসিইউ শয্যা আছে ৮১টি। সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে সারা দেশে আইসিইউ শয্যা আছে ৩৯৯। অথচ সারা দেশে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৬৫ হাজার ৭৬৯ জন। এদের মধ্যে প্রায় আট হাজার রোগী হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। বাকিরা বাসায় চিকিৎসাধীন। মোট রোগীর ৫ শতাংশের বেশির আইসিইউ’র প্রয়োজন হয়। এতে প্রায় তিন হাজার রোগীর আইসিইউ সাপোর্ট দরকার। অথচ সারা দেশে আছে মাত্র ৩৯৯টি। এর মধ্যে করোনার বাইরে অন্য রোগে আক্রান্তদেরও নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র প্রয়োজন। সব মিলে এ ধরনের শয্যার তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। একই সঙ্গে অক্সিজেন সরবরাহও প্রকট আকার ধারণ করেছে।

এদিকে ঢাকার বাইরে দেশের মাত্র ৫টি হাসপাতালে কেন্দ্রীয়ভাবে অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া বাকি সব হাসপাতালে সিলেন্ডারের মাধ্যমে রোগীদের অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়। দেশে করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরুর দিকে হাসপাতালগুলো অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দিলেও বর্তমানে সেই অবস্থা নেই বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। কিন্তু বাস্তব অবস্থা ভিন্ন। মানুষ অক্সিজেন সিলিন্ডার কিনতে গিয়ে ফিরে আসছে। এ সুযোগে দুই-তিনগুণ বেশি দামে বিক্রি করছে অসাধু ব্যবসায়ীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত মে মসের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত ঢাকার বাইরে অধিকাংশ হাসপাতালে অক্সিজেন সিলিন্ডার থাকলেও রোগীদের জন্য তা সরবরাহে পর্যাপ্ত সুবিধা নেই। ৯০ শতাংশ জেলা হাসপাতালে নেই এবিজি (আর্টারিয়াল ব্লাড গ্যাস এনালাইজার) মেশিন। অক্সিজেন সিলিন্ডার থাকলেও ৮৯ শতাংশ হাসপাতালে নেই অক্সিজন কনসেনট্রেটর। ৯৫ ভাগ হাসপাতালে নেই বিপাপ ও সিপাপ (প্রেসার দিয়ে ফুসফুসে প্রয়োজনীয় অক্সিজন সরবরাহ করার যন্ত্র)। এমনকি অক্সিজেন মাস্কের ঘাটতি রয়েছে ৩০ শতাংশ হাসপাতালে। এসব সামগ্রী না থাকায় সিলিন্ডার তেমন কাজে আসছে না।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তৈরি সারা দেশের হাসপাতালের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ঢাকা বিভাগের মানিকগঞ্জ, শরীয়তপুর, টাঙ্গাইল, নরসিংদী, রাজবাড়ী এবং ঢাকার জিনজিরা উপজেলায় নির্ধারিত কোভিড হাসপাতালে কোনো আইসিইউ শয্যা নেই। চট্টগ্রাম বিভাগের খাগড়াছড়ি, রাঙ্গামাটি, ফেনী, চাঁদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কক্সবাজার, বান্দরবান, লক্ষ্মীপুর ও নোয়াখালী জেলায় কোনো আইসিইউ শয্যা নেই। ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোনা, জামালপুর ও শেরপুরে কোনো আইসিইউ শয্যা নেই। বরিশাল বিভাগের ভোলা, ঝালকাঠি, বরগুনা, পটুয়াখালী ও পিরোজপুর জেলায় কোনো আইসিইউ শয্যা নেই। সিলেট বিভাগের সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার এবং হবিগঞ্জ জেলায় কোনো আইসিইউ শয্যা নেই।

রাজশাহী বিভাগে নাটোর, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, জয়পুরহাট, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় কোনো আইসিইউ শয্যা নেই। খুলনা বিভাগের বাগেরহাট, ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, যশোর, নড়াইল এবং মাগুরা জেলায় কোনো আইসিইউ শয্যা নেই। রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী, গাইবান্ধা জেলায় কোনো আইসিইউ শয্যা নেই।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমার জানা মতে, রাজধানীসহ জেলা হাসপাতালগুলোয় পর্যাপ্ত অক্সিজেন সিলিন্ডার মজুদ রয়েছে। এছাড়া প্রয়োজন অনুযায়ী সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাই হাসপাতাগুলোয় অক্সিজেনের কোনো ঘটতি নেই। কিছু এক্সেসরিজের ঘাটতি থাকলে সেগুলোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। বর্তমানে উল্লেখযোগ্য কোনো সমস্যা নেই।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন